হিউমাস বা বোদ মাটি (Humus or Peat Soil)

হিউমাস :

মাটিতে অবস্থিত মৃত উদ্ভিদ ও প্রাণীদেহ জীবাণু কর্তৃক বিয়োজিত হয়ে যে কালো বা বাদামী বর্ণের পচনক্রিয়া প্রতিরোধী অসমসত্ত্ব পদার্থ সৃষ্টি হয়, তাকে হিউমাস বা বোদ বলে ।

শিলাচূর্ণের সাথে উদ্ভিদ ও প্রাণীর পচনশীল দেহাবশেষ মিশে যে মাটি গঠিত হয়, তাকে হিউমাস বা পীট বা বোদ মাটি বলে ।

পচনের মাত্রা অনুযায়ী বোদ মাটি তিন প্রকারের হয়, যথা –

(i) মৃদু বোদ (Mild Humus):- সম্পূর্ণ বিয়োজিত জৈব বস্তু নিয়ে গঠিত বোদ ।
(ii) কাঁচা বোদ (Raw Humus):- আংশিক বিয়োজিত জৈব বস্তু নিয়ে গঠিত বোদ ।
(iii) পীট বোদ (Peat Humus):- অর্ধ বিয়োজিত জৈব বস্তু নিয়ে গঠিত বোদ ।

উপাদান :-

হিউমাস বেশি পরিমানে জৈব পদার্থ এবং শিলাচূর্ণের সহযোগ গঠিত । হিউমাসের উপাদান হল –  লিগনো-প্রোটিন, পলিইউরোনাইডস, ক্লে-প্রোটিন ।

হিউমাস কিভাবে সৃষ্টি হয়?

মাটিতে জৈব পদার্থ প্রয়োগ করলে তার কিছু অংশ যেমন শ্বেতসার, প্রোটিন, সেলুলোজ, হেমিসেলুলোজ ইত্যাদি, বিভিন্ন প্রকার মৃতজীবী জীবাণু (প্রধানত ব্যাকটেরিয়া) কর্তৃক বিয়োজিত হয়ে যায়; কিন্তু জৈব পদার্থের কিছু অংশ (যেমন মোম, লিগনিন, রজন ইত্যাদি) অবিয়োজিত অবস্থায় থাকে । এই জৈব বস্তুর বিয়োজিত ও অবিয়োজিত অংশ একত্রে হিউমাস গঠন করে ।

হিউমাসের উপকারিতা :-

(i) হিউমাস মাটির গঠন উন্নত করে ।
(ii) হিউমাস মাটির জল ধারণ ক্ষমত বৃদ্ধি করে ।
(iii) ইহা মাটির সচ্ছিদ্রতা বৃদ্ধি করে ।
(iv) ইহার উপস্থিতি মাটিতে জীবাণুদের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করে ।
(v) হিউমাস মাটির pH এর হ্রাস ও বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করে ।
(vi) আসলে হিউমাস উদ্ভিদের খাদ্য ভান্ডার হিসাবে কাজ করে ।

হিউমাসের বৈশিষ্ট্য :-

(i) এই মাটিতে জৈব বস্তু মিশে থাকায় এই মাটির রং কালো হয় ।
(ii) এই মাটি সাধারনত অম্লধর্মী হয় ।
(iii) কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইহা প্রশম বা ক্ষারধর্মীয়
(iv) এই মাটির জল ধারণ ক্ষমতা বেশি ।
(v) এই মাটিতে বায়ু চলাচল স্বাভাবিক হয় ।

উৎপন্ন ফসল :-

হিউমাস মাটি সাধারণ চাষের অনুপযোগী হলেও , এই মাটি চা – চাষের জন্য খুবই ভাল ।এই মাটিতে মস, ফার্ন এবং কয়েক রকম অর্কিড জন্মায় ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *