সবাত শ্বসন ও অবাত শ্বসনের মধ্যে পার্থক্য

সবাত শ্বসন ও অবাত শ্বসনের পার্থক্য

সবাত শ্বসন ও অবাত শ্বসনের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য গুলি নিম্নে টেবিলের আকারে বর্ণনা করা হল –

সবাত শ্বসন অবাত শ্বসন 
মুক্ত অক্সিজেনের (O2) উপস্থিতিতে ঘটে । মুক্ত অক্সিজেনের অনপস্থিতিতে ঘটে ।
শ্বসন বস্তু সম্পূর্ণরূপে জারিত হয় । শ্বসন বস্তু আংশিক জারিত হয় ।
অধিক পরিমানে ATP উৎপন্ন হয় । স্বল্প পরিমানে ATP উৎপন্ন হয় ।
প্রান্তীয় ইলেক্ট্রন গ্রাহক মুক্ত অক্সিজেন । প্রান্তীয় ইলেকট্রন গ্রাহক অক্সিজেন যুক্ত যৌগের অক্সিজেন ।
সাইটোপ্লাসম ও মাইট্রোকন্ড্রিয়ার মধ্যে ঘটে । মাইট্রোকন্ড্রিয়ার বাইরে অর্থাৎ সাইটোপ্লাসমে ঘটে ।
শ্বসন বস্তুর সম্পূর্ণ জারণের ফলে CO2 এবং H2O উৎপন্ন হয় । শ্বসন বস্তুর আংশিক জারণের ফলে CO2, H2O ছাড়াও অন্যান্য জৈব যৌগের (ল্যাকটিক অ্যাসিড) সৃষ্টি হয় ।
সবাত শ্বসন প্রধানত তিনটি পর্যায়ে হয় -গ্লাইকোলাইসিস, ক্রেবস চক্র এবং প্রান্তীয় শ্বসন । অবাত শ্বসন দুটি পর্যায়ে সম্পর্ণ হয় – গ্লাইকোলাইসিস এবং পাইরুভিক অ্যাসিডের অসম্পূর্ণ জারণ ।
অধিকন্ত উদ্ভিদ ও প্রাণী দেহে ঘটে । কিছু অনুজীবী, পরজীবী প্রাণী, বীজ প্রভৃতির ক্ষেত্রে ঘটে । উন্নত জিবে অক্সিজেনের অভাবে সাময়িকভাবে ঘটে ।
পরিবেশের সাথে গ্যাসীয় বিনিময় ঘটে । পরিবেশের সাথে গ্যাসীয় বিনিময় ঘটে না । এক্ষেত্রে CO2 নির্গত হলেও O2 পরিবেশ থেকে গৃহীত হয় না ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *